২০বছর পর আবারও ভারত বিশ্বকাপ ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হতে চলেছে। সেই ফাইনালে পন্টিংয়ের করা শতক এখনও ভারতীয় সমর্থকদের জন্য দুঃস্বপ্ন। নতুন করে আবারও এতদিন পর বিশ্বকাপ ফাইনালে মুখোমুখি হতে চলেছে দু’দল। তাই প্রতিশোধের অনলে দগ্ধ হচ্ছে ভারতীয়রা। অন্যদিকে, অস্ট্রেলিয়া তাদের ষষ্ঠ বিশ্বকাপ জয়ে আশাবাদী।

সেবার পুরো আসরে অপ্রতিরোধ্য থাকার পর অজিরা ২০০৩ বিশ্বকাপের টাইটেল নিজেদের করে নেয় জোহান্নেসবার্গে। প্রতিপক্ষ দল ভারত ছিলো সেবারও। সৌরভের নেতৃত্বে সেবার খেলেছিলো ভারত। সৌরভ টসে জিতে অজিদের ব্যাট করতে পাঠান।

অ্যাডাম গিলক্রিস্ট আর ম্যাথু হেইডেন ভালো শুরু করার পর অজি দলপতি পন্টিং আর মার্টিন দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন। যা অজিদের তৃতীয় বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ে বড় ভূমিকা রাখে।

পন্টিংয়ের অতিমানবীয় ইনিংসে সেদিন মুগ্ধ হয়েছিলো সবাই। অপরাজিত ১৪০ রানের ইনিংস খেলেন পন্টিং। তার শেষ নব্বই রান আসে মাত্র ৪৭ বলে। অন্যদিকে মার্টিন ৮৪ বলে অপরাজিত ৮৮ রানের ইনিংস খেলেন। দু’জনের ২৩৪ রানের পার্টনারশিপ এখনও বিশ্বকাপের রেকর্ডময় একটি ইনিংস। মার্টিন সেদিন ভাঙা আঙুল নিয়ে খেলেছিলেন।

পরবর্তীতে ভারতের ব্যাটিংয়ের সময় শচীনকে দ্রুত ফিরিয়ে ভারতকে প্রথমেই চাপে ফেলে দেয় অজিরা। অজি বোলারদের চেপে ধরা বোলিং আর দুর্দান্ত ফিল্ডিংয়ে ১২৫ রানের ব্যবধানে জয় পায় অজিরা।

২০বছর পর আবারও ফাইনালে প্রতিপক্ষ ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া। ভারতের নেতৃত্বে রোহিত। আর অস্ট্রেলিয়ার নেতৃত্বে কামিন্স। যদিও তৎকালীন পন্টিংয়ের অস্ট্রেলিয়ার সাথে বর্তমান দলের তুলনা দেওয়ার মত দুঃসাহস করছিনা। তবে বর্তমানের অস্ট্রেলিয়াও বড় টুর্নামেন্টে বরাবরই অপ্রতিরোধ্য।

এবারের আসরের শুরুটা খারাপ গেলেও সময়ের সাথে ঠিকই অজিরা নিজেদের অবস্থার জানান দিয়েছেন। প্রমাণ করেছেন অজিরা সবসময় বড় টুর্নামেন্টের দল। আর এরই ফলস্বরূপ ফাইনালে পৌঁছে গেছে অজিরা। অথচ টুর্নামেন্টের শুরুটা দেখে অনেকে বাতিলের খাতায় ফেলে দিয়েছিলো অজিদের। সেখান থেকে ঘুরে এমন প্রত্যাবর্তন বোধহয় অজিদের বেলাতেই সম্ভব।

অন্যদিকে, টুর্নামেন্টের শুরু থেকে অপ্রতিরোধ্য দল ভারত। একপ্রকার টুর্নামেন্ট জায়ান্ট হিসেবেই আসরের এ পর্যন্ত এসেছে স্বাগতিকরা। সে হিসেবে এবারের আসরে হট ফেভারিট বলা চলে ভারতকে। হোমগ্রাউন্ড হিসেবে যার সম্ভাবনা আরও অনেক বেশিই। সব মিলিয়ে ভারতও দীর্ঘ সময়ের ট্রফি ক্ষরা কাটাতে প্রস্তুত।

হোমগ্রাউন্ড হিসেবে দর্শকদের সমর্থনও ভারতের জন্য আলাদা বাড়তি প্রাপ্তি। তবে অজিরাও কম কিসে? হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ফাইনাল দেখতে প্রস্তুত ক্রিকেটবিশ্ব। কার হাতে উঠবে কাঙ্ক্ষিত ট্রফি? অস্ট্রেলিয়ার ষষ্ঠ নাকি ভারতের প্রতিশোধ? কে লুফে নিবে সোনার ট্রফি? অপেক্ষা থাকছে দুপুর পর্যন্ত….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here